আওয়ামী লীগকে কক্ষপথে রাখতে জবাবদিহিতার সংস্কৃতি প্রয়োজন

বর্তমানে দেশে এমনই রাজনীতি চলছে কিনা যা বঙ্গবন্ধু উনিশশো পচাত্তর সালে জাতীয় সংসদে দেয়া একটি অসাধারণ সংশয়োক্তি ছিলো। তিনি বলেছিলেন – “আওয়ামী লীগ একটি মাল্টি ক্লাস পার্টি। আমি তার নামের আগে কৃষক শ্রমিক লাগিয়েছি বৈকি,কিন্তু দলটির চরিত্র এখনো বদলাতে পারিনি, রাতারাতি তা সম্ভবও নয়। আমার দলে নব্য ধনীরাও আছে।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ায় তাদের লুটপাটের সুযোগ বহুগুণ বেড়ে গেছে। আমি তাদের সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থায় নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য বাকশাল করেছি। যদি এই ব্যবস্থা সফল করতে ব্যর্থ হই এবং আমার মৃত্যু ঘটে, তাহলে দলকে কজা করে ওরা আরও লুটপাটে উন্মত্ত হয়ে উঠতে পারে। এমনকি স্বাধীন বাংলাদেশের মূলমন্ত্রে শত্রু পক্ষের নীতি ও চরিত্র অনুসরণ করে আওয়ামী লীগের নীতি ও চরিত্র পাল্টে ফেলতে পারে। যদি তা হয়, সেটাই হবে আমার দ্বিতীয় মৃত্যু।

সেজন্য আগেই বলছি,আমার দল আমার অনুসারীদের হাতেই যদি আমার এই দ্বিতীয় মৃত্যু ঘটে,তাহলে দীর্ঘকালের জন্য বিস্মৃতির অন্ধকারে চলে যেতে হবে। কবে ফিরব তা জানিনা। ” বর্তমান রাষ্ট্রের ব্যর্থ শিক্ষাব্যবস্থা, আত্মঘাতী চিকিৎসা ব্যবস্থা, রাজনৈতিক দলে নেতাদের চরিত্রহীনতা, আমলাতান্ত্রিক মহাসমারোহে জবাবদিহিতার অভাব,দালাল মিডিয়া শ্রেণী, অনাদর্শিক ব্যবসায়ী শ্রেণী,সাম্প্রদায়িক মনোভাবপোষণকরা সুবিধাভোগী, নীতিহীনদের নির্মম স্বজনপ্রীতি,আকাশচুম্বী বিলাসিতা ও মাদকাসক্তলোকের হাতে আইনের ব্যবহার চলছে।

যা বাংলাদেশের স্বাধীনতার উদ্দেশ্য ও সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। একটি শ্রেণী দেশের গরীব -দুঃখী -মেহনতি মানুষের টাকা লুটপাট করে আত্মবিলাসিতায় মত্ত হয়ে দেশে-বিদেশে বিলাসী জীবনযাপন করছে। আরেকটি শ্রেণী অর্থকষ্টে,চিকিৎসার অভাবে,সুশাসনের অভাবে ও জবাবদিহিতার অভাবে গড়ে ওঠা সমাজে মানবেতর জীবনযাপন করছে। তারেক জিয়ার মত যারা দেশে লুটকরে লন্ডনে বা বিভিন্ন দেশে রয়েছে তাদের টাকা বিদেশে ব্যাংক থেকে ফিরিয়ে আনতে হবে।

আর গুলিস্তান মোড়ে একটি জবাবদিহিতার চত্বর করে যারা অনিয়মের সাথে জড়িত(দেশে বিদেশে যেখানেই থাকুক) তাদেরকে ধরে জেলের ভিতরে কানধরে দাঁড় করিয়ে রাখতে হবে। আসল কথা হলো খারাপ লোকদের কাছে দেশ, মানুষ ও দল নিরাপদ নয়। তাদেরকে বিতাড়িত করে দেশ ও দলকে নিরাপদ করতে হবে। আর এই পরিবর্তন দেশের ভিতর থেকেই করতে হবে।

কিছু আদর্শিক উত্তরাধিকারই ধ্বংসের দ্বারপ্রান্ত থেকে দেশকে ফিরিয়ে আনতে পারে। বঙ্গবন্ধু র স্বপ্ন ও জননেত্রী শেখ হাসিনার পরিশ্রম ব্যর্থতায় পর্যবাসিত না হয় তাই সবকিছু পাল্টে ফেলতে হবে। আর তা না হলেই বঙ্গবন্ধুর নিজ দলের অনুসারীদের হাতে দ্বিতীয় মৃত্যু নিয়ে করা ভবিষ্যৎ বাণী সত্য হয়ে বাস্তবে এভাবেই চলতে থাকবে। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

Facebook Comments