মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় ১ম সুমাইয়াকে নিয়ে কোচিং মালিকদের টানাটানি!

তিনি ভর্তি পরীক্ষার ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯২.৫ নম্বর পেয়েছেন। তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজে পরীক্ষা দিয়েছেন। গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশের পর পর সুমাইয়া কোথায় কোচিং করেছেন তা নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন তথ্য আসতে শুরু করে। ৫টি কোচিং সেন্টার সুমাইয়াকে তাদের শিক্ষার্থী বলে দাবি করে। মীমের সাফল্যে নিজেদের যুক্ত করতে দিনভর ব্যস্ত ছিলেন তারা।

এদের মধ্যে রেটিনা, মেডিকো এবং উন্মেষ তাদের কোচিং সেন্টারের ফেসবুক পেজ থেকে সুমাইয়াকে নিজেদের শিক্ষার্থী বলে দাবি করে। এমন খবরে ফেসবুকে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে সুমাইয়া মীম নিজেই জানালেন, কোথায় কোচিং করেছেন তিনি। সুমাইয়া মোসলেম মীম বলেন, আমি ডিএমসি স্কলার কোচিংয়ের শিক্ষার্থী। এখানে ছাড়া আর কোথাও আর অন্য কোনো কোচিংয়ে ক্লাস করিনি। তবে উন্মেষ এবং রেটিনা কোচিংয়ে মডেল টেস্ট পরীক্ষা দিয়েছি।

এদিকে রেটিনা কোচিংয়ে ইউটিউব চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মীম বলেন, আমি রেটিনা কোচিংয়ের খুলনা শাখার শিক্ষার্থী। খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার কলেজশিক্ষক মোসলেম উদ্দীনের মেয়ে সুমাইয়া মোসলেম মীম। খুলনা মেডিকেল কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছিলেন মীম। লিখিত পরীক্ষায় ৯২ দশমিক ৫ নম্বর পেয়েছেন। সবমিলিয়ে তার মোট প্রাপ্ত নম্বর ২৯২ দশমিক ৫।

এর আগের শিক্ষাবর্ষেও (২০২০-২১) মেডিকেলের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার মেধাতালিকায় প্রথম হয়েছিলেন একজন নারী। সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছিলেন মিশোরী মুনমুন। তিনি পাবনা মেডিকেল কলেজ থেকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। ভর্তি পরীক্ষার ১০০ নম্বরের মধ্যে তিনি পেয়েছিলেন ৮৭ দশমিক ২৫। প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার প্রকাশিত ফলে জাতীয় মেধার ভিত্তিতে মোট ৭৯ হাজার ৩৩৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। গত ১ এপ্রিল সারা দেশের ১৯ কেন্দ্রের ৫৭টি ভেন্যুতে একযোগে সকাল ১০টা থেকে ১১টা ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

Facebook Comments