রবিবার ফ্রান্সের নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোট

রবিবার ফ্রান্সের নাগরিকরা প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোটাধিকার প্রয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
সাম্প্রতিক জরিপে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কট্টর ডানপন্থী প্রার্থী মারি লো পেনের চেয়ে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর অগ্রগামিতা উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। প্রচারণা শেষ হয়েছে।

কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ফ্রান্সে আগের নির্বাচনগুলোর তুলনায় কম হবে বলে মনে করা হচ্ছে।ফ্রান্সের রবিবারের নির্বাচনের ওপর ইউক্রেনের যুদ্ধ ব্যাপক ছায়া ফেললেও অনেক ভোটারেরই প্রধান সমস্যা হলো জীবনযাত্রার ব্যয়। ম্যাখোঁ এবং লো পেন দুই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী।

তবে ২৪ এপ্রিল দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছানোর জন্য আরো ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।এক মাস আগে, মারি লো পেন ম্যাখোঁর চেয়ে ১০ পয়েন্ট পিছিয়ে ছিলেন।

এখন তাকেই রান-অফ ভোটে রাষ্ট্রপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রিয় হিসাবে দেখা হচ্ছে।ম্যাখোঁর ভোটের রেটিং ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের প্রথম দিনগুলোতে তার কূটনৈতিক প্রচেষ্টার কারণে বৃদ্ধি পেয়েছিল। তবে ভোটাররা পরিবারের বিল এবং ক্রমবর্ধমান দ্রব্যমূল্যের কারণে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে।

বিশ্লেষকরা ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, ভোটারদের উপস্থিতি ২০১৭ সালের ২২.২ শতাংশের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে।বিতর্কিত নেত্রী লো পেন সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তার ভাবমূর্তি মেরামতের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন। নিজেকে লোকের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত, মধ্যপন্থী এবং সর্বোচ্চ পদের জন্য উপযুক্ত হিসাবে উপস্থাপন করেছেন। অথচ বছরের পর বছর ধরে তিনি অভিবাসন-বিরোধী, ইইউ-বিরোধী বার্তা বজায় রেখেছেন।

তবে প্রচারণার শেষ সপ্তাহগুলোতে তিনি জীবনযাত্রার উচ্চ ব্যয়ের দিকে ক্রমবর্ধমানভাবে মনোনিবেশ করেছেন। সূত্র: বিবিসি

Facebook Comments