আইপিএল ম্যাচ প্রিভিউঃ চেন্নাই সুপার কিংস বনাম রাজস্থান রয়্যালস

আইপিএল ম্যাচ প্রিভিউঃ চেন্নাই সুপার কিংস বনাম রাজস্থান রয়্যালস। ক্রিকেট দুনিয়ায় আইপিএলের উন্মাদনা শুরু হয়ে এখন বেশ ভালোভাবেই জমে উঠেছে। আইপিএল মানেই একের পর এক শ্বাসরুদ্ধকার ম্যাচ। বিডিনিউজ ট্র্যাকারের পাঠকদের জন্য আমাদের ধারাবাহিক আয়োজনে আইপিএল ম্যাচ প্রিভিও এর আজ থাকছে চেন্নাই ও রাজস্থানের মধ্যকার এবারের আসরের ১৭তম ম্যাচের প্রিভিও।

আইপিএল ম্যাচ প্রিভিউঃ ম্যাচ নম্বর ১৭

চেপুক বা চেন্নাইয়ের দূর্গে চেন্নাই সুপার কিংসকে তাদের নিজস্ব খেলায় চ্যালেঞ্জ জানাতে যে কেউই ভয় করবে যদি না আপনি রাজস্থান রয়্যালস না হন। জয়পুর দলে ভারতের সেরা অফস্পিনার এবং সেরা লেগস্পিনার রয়েছে এবং একটি টার্নিং ট্র্যাকে এই জুটির মুখোমুখি হওয়া যে কোনও দলের পক্ষে বেশ মুষ্টিমেয় প্রমাণিত হতে পারে। যদি প্রয়োজন হয়, তাদের কাছে অ্যাডাম জাম্পাও থাকছে অপশন হিসেবে এছাড়া মুরুগান অশ্বিনকে ইমপ্যাক্ট সাব হিসাবে ব্যবহার করার বিকল্পও রয়েছে তাদের হাতে।

সিএসকে কীভাবে এই সবের মোকাবিলা করতে পারবে সেটাই বড় প্রশ্ন কারণ তারা উদ্বোধনী খেলায় হারার পর তাদের তৃতীয় জয়ের দিকে নজর দেয়। প্রতিদ্বন্দ্বী মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে একটি প্রতিযোগিতায় তাদের বড় জয়ের পিছনে সিএসকে এই খেলায় পৌঁছেছে যেখানে তাদের নিজস্ব স্পিন জুটি মিচেল স্যান্টনার এবং রবীন্দ্র জাদেজার একটি বড় অবদান ছিল। এদিকে নিউজিল্যান্ড থেকে যথাসময়ে পৌঁছানোর পর বুধবার (১২ এপ্রিল) মহেশ থিকশানা এটিকে একটি ত্রয়ীতে পরিণত করতে পারে৷ মোট কথা এবারের আসরে স্পিন ডিপার্টমেন্টের কথা বললে সবচেয়ে শক্তিশালী স্পিন অ্যাটাক করেছে চেন্নাই সুপার কিংস।  জাদেজা-স্যান্টনার- থিকসানা ত্রয়ীর এক সাথে মাঠে নামলে দেখা যাবে সেই ভয়ংকর রূপ। সেক্ষেত্রে অবশ্যই স্পিন ফ্রেন্ডলি পিচ চাইবে চেন্নাই। যে মাঠগুলোতে স্পিন সহায়ক উইকেট হবে সেসব মাঠগুলোতে তাই চেন্নাইয়ের জয়ের সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকবে।

 অন্যদিকে রাজস্থান রয়ালস প্রতি ম্যাচেই স্টেডি স্টার্ট পাচ্ছে জস বাটলার এবং জয়সাওয়ারে ব্যাটে । সাথে যোগ দিয়েছেন ওয়ান ডাউনে অভিজ্ঞ আজিঙ্কা রাহানের মত পরিক্ষীত পারফরমার। অজিঙ্কা রাহানের ঝলমলে অভিষেক তাদের আশাবাদী হওয়ার প্রচুর কারণ দেয় বিশেষ করে বেন স্টোকস এই ম্যাচটি মিস করতে সেট করার কারণে। যাইহোক, রাহানে অতীতে তার আড়ম্বরপূর্ণ সময়েও স্পিনের বিরুদ্ধে সমস্যায় পড়েছেন এবং যদি তিনি ৩ নম্বরে ব্যাটিং চালিয়ে যান তবে এটি পরীক্ষা করা যেতে পারে চেন্নাই সুপার কিংসকে তাদের নিজস্ব খেলায় চ্যালেঞ্জ করবেন না যদি না আপনি রাজস্থান রয়্যালস না হন। রাজস্থান দলে ভারতের সেরা অফস্পিনার অশ্বিন এবং সেরা লেগস্পিনার কুলদিপ রয়েছে এবং একটি টার্নিং ট্র্যাকে এই জুটির মুখোমুখি হওয়া যে কোনও দলের পক্ষে কঠিন প্রমাণিত হতে পারে। যদি প্রয়োজন হয়, তাদের কাছে অ্যাডাম জাম্পায়ও খসড়া করার বা মুরুগান অশ্বিনকে ইমপ্যাক্ট সাব হিসাবে ব্যবহার করার বিকল্পও রয়েছে।

রয়্যালস ব্যাটারদের জন্য, পদ্ধতির পরিবর্তনটি বেশ ব্যাপক হতে চলেছে কারণ তারা গুয়াহাটিতে ব্যাটিং বন্ধুত্বপূর্ণ পরিস্থিতিতে তাদের শেষ দুটি ম্যাচ খেলেছে। কিন্তু বাঁকবদলের কন্ডিশনেও তাদের ব্যাটসরা সিএসকে-এর উপরে ইতিহাসের ধার ধরে রাখতে পারে। গত পাঁচ বছরে আইপিএলে ফিঙ্গার স্পিনের বিরুদ্ধে জস বাটলারের রেকর্ড ব্যতিক্রমী কারণ তিনি ১৫৬ এর স্ট্রাইক রেটে 100-এর বেশি গড়। সঞ্জু স্যামসন বাঁহাতি স্পিনারদের বিরুদ্ধে তাঁর রেকর্ডও দারুণ ১৬১.৭।

সিএসকে কীভাবে এই সবের মোকাবিলা করতে পারবে সেটাই বড় প্রশ্ন কারণ তারা উদ্বোধনী খেলায় হারার পর তাদের তৃতীয় জয়ের দিকে নজর দিচ্ছে আজ নিজেদের মাটিতে।

যাইহোক, এই দুটি পোশাকের মধ্যে সম্ভাব্য মুখের জলের স্পিন যুদ্ধের সমস্ত আলোচনার মধ্যে, আমরা একটি অ্যান্টি-ক্লাইম্যাক্সের জন্য প্রস্তুত হতে পারি যদি চেপাউকে পৃষ্ঠটি বেশ সমতল দেখা যায় যেমনটি গত সপ্তাহে লখনউ সুপার জায়ান্টসের বিরুদ্ধে হয়েছিল। সেই রাতে 420 রান করা হয়েছিল এবং এমএস ধোনি স্বীকার করেছিলেন যে তিনি কীভাবে পৃষ্ঠটি খেলেছিলেন তাতে তিনি অবাক হয়েছিলেন। সম্ভবত একটি পরিবর্তনের জন্য, যদি অনুরূপ পৃষ্ঠটি বের করে দেওয়া হয় তবে দুর্গটি লঙ্ঘন না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকতে পারে।

কখন: বুধবার, ১২ এপ্রিল বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টা

কোথায়: এমএ চিদাম্বরম স্টেডিয়াম, চেন্নাই

কী আশা করা হচ্ছেঃ এমনকি ধোনিও কখনও কখনও জানেন না কী আশা করবেন, যেমন তিনি স্বীকার করেছেন এলএসজি খেলার পরে। গত মাসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডেতে যে পৃষ্ঠটি ব্যবহার করা হয়েছিল তা টার্নে সহায়তা করেছিল, এলএসজির বিপক্ষে একটি বেল্টার ছিল।

চেন্নাই সুপার কিংস

খবর: মহেশ থেকশানা এবং মাথিশা পাথিরানা খেলার আগে স্কোয়াডে যোগ দিয়েছেন। প্রাক্তন সরাসরি স্লট হতে পারে. বেন স্টোকস এবং দীপক চাহার সাইডলাইনে থাকবেন তবে সিএসকে মঈন আলীর উপলব্ধতার দ্বারা উত্সাহিত হবে।

কৌশল এবং ম্যাচ আপ: রুতুরাজ গায়কওয়াদ এই বছরের আইপিএলে খুব ভালো শুরু করেছিলেন। যাইহোক, ট্রেন্ট বোল্টের বিরুদ্ধে তার রেকর্ডটি আত্মবিশ্বাসী নয় কারণ তিনি 21 ডেলিভারির মধ্যে তিনবার নিউজিল্যান্ডের সিমারের দ্বারা আউট হয়েছেন। সিএসকে নিশ্চিত করতে হবে যে বোল্টের প্রাথমিক হুমকি তার নিউজিল্যান্ড সতীর্থ ডেভন কনওয়ের দ্বারা মোকাবেলা করা হবে।

সম্ভাব্য একাদশ: রুতুরাজ গায়কওয়াড়, ডেভন কনওয়ে, অজিঙ্কা রাহানে, মঈন আলি, শিবম দুবে, রবীন্দ্র জাদেজা, এমএস ধোনি (সিএন্ড ডব্লিউকে), মিচেল স্যান্টনার, রাজবর্ধন হ্যাঙ্গারগেকার, মহেশ থেকশানা, তুষার দেশপান্ডে

রাজস্থান রয়্যালস

কৌশল এবং ম্যাচআপ: এই মরসুমে পাওয়ারপ্লেতে CSK-এর সবচেয়ে খারাপ ইকোনমি রেট (১১.৪৪)। যশস্বী জয়সওয়ালের রূপে রয়্যালসের কাছে এটির সম্পূর্ণ টোল নেওয়ার জন্য আদর্শ ব্যাটার রয়েছে। তরুণ বাঁ-হাতি, বেশ অবিশ্বাস্যভাবে, এই মৌসুমে পাওয়ারপ্লেতে 200-এর কাছাকাছি স্ট্রাইক করছে এবং ট্র্যাকটি ধীর হয়ে গেলে সেই পর্বটি পার্থক্য সৃষ্টিকারী হতে পারে। যে কারণে কৌশল থাকবে ১ম পাওয়ার প্লেতে আগ্রাসী ব্যাটিং করা। এরপর মিড ওভারে উইকেট রেখে দেখে শুনে ব্যাটিং করে শেষ ৫ ওভারে ৬০-৭০ রানের স্লগ করা।

সম্ভাব্য একাদশ: যশস্বী জয়সওয়াল, জস বাটলার, সঞ্জু স্যামসন (সি অ্যান্ড ডব্লিউকে), ধ্রুব জুরেল/দেবদত্ত পাডিক্কল, শিমরন হেটমায়ার, রিয়ান পরাগ, জেসন হোল্ডার, আর অশ্বিন, এম অশ্বিন, ট্রেন্ট বোল্ট, যুজবেন্দ্র চাহাল

আপনি কি জানতেন?
– ২০২০ সাল থেকে আইপিএলে ট্রেন্ট বোল্ট প্রথম ওভারে ১৯ উইকেট নিয়েছেন
– ২০২০ সাল থেকে, মহেশ থেকশান ৭.৩৩ এর চিত্তাকর্ষক ইকোনমি রেটে টি-টোয়েন্টিতে ডেথ এ ১২ উইকেট নিয়েছেন

ম্যাচ প্রেডিকশনঃ বিশ্বের কোটি ক্রিকেটপ্রেমীর সবেচেয়ে কাঙ্খিত প্রশ্ন কারা জিতবে? এই প্রশ্নের উত্তর দেয়া কঠিন। তবে চেন্নাইয়ের মাটিতে আজকে হাই স্কোরিং ম্যাচ হবার সম্ভাবনা খুবই কম। যে দলই ব্যাট করুক ১৬০-১৮০ রানের মধ্যে একটা ডিফেন্ডেবল স্কোর হতে পারে। স্পিনাররা ভালো করলে এই রানই যথেষ্ট হতে পারে। তবে রাতের খেলা বিবেচনায় নিলে পরে ব্যাটিং করা দলের জয়ের সম্ভাবনা থাকবে ৮০%। এবার মিলিয়ে নিন কোন দল জিতবে। টস এবং ১ম ইনিংসের আগেই সম্ভাব্য ফেবারিট চেন্নাই সুপার কিংস। কিন্তু যদি  চেন্নাই যদি টসে হেরে আগে ব্যাটিং করে সেক্ষেত্রে রাজস্থান রয়ালসের ভালো সুযোগ থাকবে।