আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরে তামিম

২০২৩ বিশ্বকাপ খেলার আগ্রহ ছিল। আনুষ্ঠানিকভাবেই বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেছিলেন, ‘ভারতে নিজের শেষ বিশ্বকাপ খেলবো।’ কিন্তু শেষ কিছুদিন ধরে ফিটনেস ও ফর্মের রসায়ণ জমছিল না কিছুতেই। দেশের সেরা ওপেনার ছিলেন নিজের ছায়া হয়ে। তাতে শঙ্কার মেঘ জমছিল তার আকাশে। সেই মেঘ এবার বৃষ্টি হয়ে ঝরলো। আর তামিম ইকবাল নিয়ে নিলেন নিজের ক্যারিয়ারের কঠিনতম সিদ্ধান্ত।

অনেক জল্পনা, নানামুখী আলোচনার পর অবশেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের ধ্রুবতারা তামিম ইকবাল। বৃহস্পতিবার নিজ শহর চট্টগ্রামেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বললেন।

‘নরম্যালি, এরকম পরিস্থিতিতে মানুষ স্পিচ লিখে আসে। কিন্তু আমার সেরকম কোনো প্রস্তুতি নেই। আমার পুরো ক্যারিয়ারেই আমি কখনো কোনো স্পিচ দিয়ে কিছু বলিনি।

খুব বেশি বড় করবো না। গতকাল আফগানিস্তানের বিপক্ষে আমি আমার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছি। আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছি। এই সিদ্ধান্ত এখন থেকেই কার্যকর হতে যাচ্ছে। এটার পেছনে সাডেন কোনো সিদ্ধান্ত ছিল না। আমি নিজ থেকে এটা নিয়ে চিন্তা করছিলাম। ভিন্ন ভিন্ন কারণ আছে যেগুলো আমার এখানে বলার দরকার আছে।

এটা না যে আমি হুট করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি বেশ কয়েকদিন ধরে কথা বলছিলাম। আমার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলছিলাম। আমি মনে করি এটা সেরা সময় সরে দাঁড়ানোর, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেওয়ার।’

এর আগে ২০২২ সালের ১৬ জুলাই হঠাৎই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিয়ে টি-টোয়েন্টি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন তামিম। এর-ও ছয় মাস আগে এই ফরম্যাট থেকে সেচ্ছ্বাবিরতি নিয়েছিলেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। এরপর থেকে শুধু টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেট চালিয়ে যাচ্ছিলেন। ১২ মাসের ব্যবধানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকেই সেরে গেলেন।