কুলিয়ারচরে রাতের আঁধারে শত বছরের পুরনো শ্মশান ঘাট ভাংচুর

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে রাতের আঁধারে শ্মশান ঘাট ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (৩জুন) দিবাগত রাতের যে কোন সময় কে বা কাহারা কুলিয়ারচর পৌর এলাকার পৈলনপুর টিয়াকাটা খালেকারকান্দি গ্রামের শত বছরের পুরনো শ্মশান ঘাট ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছে।

স্থানীয় গৌরাঙ্গ চন্দ্র বর্মণ (৫৫), দ্বিলিপি দাস (৫৫), অমৃত দাস (৪৫), ঈশ্বর দাস (৫০) ও গৌরাঙ্গ চন্দ্র বর্মণ (৪৫) বলেন, আমরা শনিবার ৪ জুন সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখতে পায় আমাদের দীর্ঘ দিনের পুরানো শ্মশান ঘাট কে বা কাহারা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। এতে করে আমাদের ধর্মীয় অনিভূতিতে মারাত্মক ভাবে আঘাত লেগেছে। তারা শ্মশান ঘাট ভাঙ্গা নিয়ে কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছে বলেও জানান। কারা এই শ্মশান ঘাট ভেঙ্গেছে তা কিছু এখনো জানা যায়নি। এটা গ্রামবাসীর জন্য মর্মান্তিক ঘটনা। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তারা।

এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জহির রায়হান জজ, পৌর আওয়ামী লীগে আহ্বায়ক মো. গিয়াস উদ্দিন, পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. হাবিবুর রহমান, কাউন্সিলর জামাল উদ্দিন, সৈয়দ কানন ও পৌর এলাকার মো. মোবারক হোসেন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আমার ধারণা রাজনৈতিক কোন ফায়দা নেওয়ার জন্য তৃতীয় কোন পক্ষ এ ঘটনা ঘটাইতে পারে।

এ সংবাদ পেয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, কিশোরগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) অনির্বাণ চৌধুরী, কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (দায়িত্ব প্রাপ্ত) জতিশ্বর পাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমতিয়াজ বিন মুছা জিসান, কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।