সালমা জাহানের অনিবন্ধিত ভালোবাসার গল্প

তরুণ উদীয়মান কবি ও লেখক সালমা জাহানের নতুন গল্পের নাম – অনিবন্ধিত ভালোবাসা । জনপ্রিয় বাংলা অনলাইন নিউজ পোর্টালে গল্পটি প্রকাশিত হয়। পাঠকদের জন্য সে গল্পটিই তুলে ধরা হলো।

অনিবন্ধিত ভালোবাসা


প্রায় সাড়ে সাত বছর পর আমার প্রাক্তনের সাথে ফোনকলে কথা হলো। তাও ভিডিও কল। মাঝে মধ্যে মেসেজ এ টুকটাক কথা হতো। সে ভীষণ ব্যস্ত মানুষ। নিজে নক দিয়েই উধাও হয়ে যায়। দেখা গেলো আমি রিপ্লাই দেওয়ার সপ্তাহ দুই তিনেক পর তার রিপ্লাই।

হুট করেই আজ বায়না করে বসলো।ভিডিও কলে কথা বলবে।আমিও সাঁয় দিলাম।এ আর তেমন কি! এক সময় মন প্রাণ উজাড় করা অনুভূতি গুলো তো আজ ফ্যাকাসে হয়ে গেছে!
সে তো আজ আমার শহরে নতুন না।

আমাকে দেখছে,হাসছে,মাঝে মাঝে মন খারাপি পোস্ট দেখে মুখ গোমড়া করে থাকছে! তাতে আমার লাভ কি! আছে কিছু!
নেই বলেই ভিডিও কলে কথা বলার জন্য হয়তো রাজি হলাম।
আমার দেওয়া নাম্বার টাইপ করে আমাকে কল দিলো।ভিডিও কল।

আমি স্বাভাবিক থেকেই কথা বলছি।তার মাঝে বিরাজ করছে রাজ্যের জড়তা! অস্বাভাবিক কিছু নয়।সে আমার মতো ওতোটা স্বাভাবিক না।আমি নিতান্তই স্বাভাবিক ভাবে থাকা মানুষ। সব পরিস্থিতিতে নিজেকে সামাল দেওয়া লোক।
কথার পিঠে কথা উঠছে।কেমন আছি,দিন কাল কেমন যায়!

হঠাৎ করে বলে উঠলো,”আজ সব বাদ দিয়ে নাক নিয়ে একটা কবিতা লিখবে।” আমি অবাক হলাম!এত কিছু থাকতে নাক নিয়ে কেন!প্রথম কথায় বুঝতে না পেরে পালটা প্রশ্ন করলাম।পরক্ষনেই বুঝতে পারলাম,সে তার প্রাক্তনের সৌন্দর্যের উপমা দিচ্ছে।

খিলখিলিয়ে হেসে উঠলাম।তার তাকানো টা আগে ঠিক কেমন ছিল,আমি ভুলে গেছি।তাই তুলনা কর‍তে পারিনি। তবে সে যে বারবার আমাকে পরখ করছে,বেশ বুঝতে পেরেছিলাম।বেশ খানিক সময় কথা হলো।আমি বদলে গেছি সেটা সরাসরি না বলে বারবার বলছিল,আমি কথা বলতে শিখে গেছি,বেশ ছটফটে হয়ে গেছি।আমিও হেসে সাঁয় দিলাম।

মানুষ তো আর সবসময় এক থাকে না।আমিও থাকিনি।
কথার পিঠে বলে উঠলো,বিয়ে করবে কবে! আমার কপালে খানিক ভাজ পড়ে গেলো। বিয়ে নামক শব্দটা আমার কাছে নতুন নয়। তবে হুটহাট শুনলেই নতুন লাগে। মনে হয় এই একটা শব্দ আজীবন আমার অভিধানের বাইরেই থাকে।মাঝে মাঝে জায়গা খুঁজে বেড়ায়। সমর্থনের অভাবে গন্তব্য বদলে ফেলে।

কিছুটা হেসে বললাম,বিয়ে করে তুমি সুখে আছো।সেটা তোমার ভাগ্য।আমি সুখে থাকব, তার নিশ্চয়তা নেই।তাই আপাতত এসব থেকে দূরে। সে খানিক চুপ থেকে বলে উঠল, আপাতত দূরে মানে শীগ্রই কিছু শুনব আশা করছি।
তোমার সে আশায় গুড়ে বালি বলে হেসে উঠলাম।
তার প্রতি উত্তর ছিল,তুমি ঠিক তেমন থেকো,যেভাবে শত কষ্ট নিয়েও হেসে বেড়াও।
আমিও মাথা নেড়ে সে হাসি দিয়ে সাঁয় দিলাম।

মাঝে মাঝে কিছু পেতে হলে কিছু ছেড়ে দিতে হয়। সেক্ষেত্রে পাওয়াটা স্পষ্ট থাকতে হয়।পাওয়াটা অস্পষ্ট থেকেই একদিন স্পষ্ট সব ছেড়ে এসেছি। আজ অস্পষ্ট সব আমার জীবনে মুখ্য।থাকুক সেসব অস্পষ্ট সুখ।তবে আজ সেসব আর অস্পষ্ট নেই।দৃশ্যত হয়ে জানান দিচ্ছে, কবিতার বিষাদ এক জীবন তোমার সঙ্গী থাকুক।সমাপ্ত

গল্পঃ অনিবন্ধিত ভালোবাসা
লেখকঃ সালমা জাহান