সিনিয়র জুনিয়রে দারুণ ঐক্য গড়ে উঠছে বাংলাদেশ দলে

সিনিয়র জুনিয়রে দারুণ ঐক্য গড়ে উঠছে বাংলাদেশ দলে। গতকাল সাকিবের ইন্টারভিউতে দেখলাম সাকিব বললেন, আমি মুশি ভাই আর রিয়াদ ভাইয়ের পাওয়ার তেমন কিছু নাই, এবার সময় দলকে দেওয়ার। আজ প্রস্তুতি ম্যাচ দেখে মনে হচ্ছে, মুশি-রিয়াদ টুক ইট সিরিয়াসলি। আজ প্রতিটা ক্ষণ মাহমুদউল্লাহ দলের প্রতি তার ডেডিকেশনের ছাপ রেখেছেন। দল থেকে বিশ্রাম নাটকের সময় তিনি যে পরিশ্রম করেছেন তা মাঠে ফুটিয়ে তুলেছেন। বলের পিছনে দৌড়ানো কিংবা বল রিসিভ করার পর দ্রুত থ্রো ব্যাক, সব জায়গায় ই আগের দিনের মাহমুদউল্লাহ কে দেখতে পেয়েছি। মুশি নিজেও উইকেটের পিছনে দারুণ কিপিং করেছেন৷ বিশেষ করে ফ্লাইং মুশির কথা না বললেই নয়, অসাধারণ।
আপনাদের ডেডিকেশনেই স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ, স্বপ্ন দেখে ১৮ কোটি বাঙালী। একটা নির্মম বাস্তব কথা বলি কোন টিমেই কখনই জুনিয়র সিনিয়র কোন গ্যাঞ্জাম হয় না। গ্যাঞ্জাম সব বন্ধুদের মধ্যেই। ওযাসিম – ওয়াকার, শচীন- সৌরভ, গাভাস্কার – কপিল দেব, তামিম – সাকিব। সম্পর্কটা যখন রেস্পেক্ট ছাপিয়ে ডমিনেন্স এর হয়ে যায় গ্যাঞ্জাম হবেই। ১৪ মাস আগেই বলেছিলাম এমন কিছু হবে। সেটাই হলো। যাহোক গত ১৪ মাসের মধ্যে বাংলাদেশ দলের ড্রেসিংরুম এখন অনেক বেশি ফুরফুরে। কোন দ্বন্দ্ব নাই। এইতো সময় টিমকে এক সুতোয় বাঁধার। সেটা হলে সেমিফাইনাল অন দ্যা কার্ড! বিশ্বকাপ জিততেই হবে তেমন কোন চাপ না নিয়ে প্রতিটি ম্যাচে ১১ বাঘ এক হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ো। দেখা হবে সেমিফাইনালে ।